প্যারালাল প্রোগ্রামিং [Parallel Programing]

পৃথিবী থেমে নেই। প্রতিনিয়তই ঘুরছে। থেমে নেই বিজ্ঞানীরাও। প্রতিনিয়তই আবিষ্কার করে যাচ্ছে। বিজ্ঞানের যে শাখাটির সবচেয়ে দ্রুত অগ্রগতি হচ্ছে তা হচ্ছে কম্পিউটার সাইন্স, ইলেক্ট্রিনিক্স। ন্যানো প্রযুক্তি।
ন্যানো প্রযুক্তির কল্যানে আজ আমরা এত ছোট ছোট জাগায় অনেক বেশি ক্ষমতাশীল কম্পিউটার পাচ্ছি। আপনার প্রথম কম্পিউটারটির কথা চিন্তা করুন। কত সামান্য ক্ষমতাই না ছিল তার। আর এখন? হাতের স্মার্টফোনটি ঐ প্রথম কম্পিউটারটি থেকে অনেক বেশি ক্ষমাতাশীল। সাথে রয়েছে অনেক গুলো ইন্ট্রিগ্রেটেড সিস্টেম। ক্যামেরা, সাউন্ডবক্স, জিপিএস, মোশন ডিটেক্ট্রর সহ আরো কত কি। চিন্তা এখানেই শেষ না। চিন্তা হচ্ছে অন্য জাগায়, মাল্টি কোর প্রসেসর।

এখনকার প্রায় প্রসেসর এর মধ্যেই একাদিক কোর রয়েছে।  একাদিক কোর দেওয়ার কারন হচ্ছে একই সাথে একাদিক প্রসেস সম্পর্ন করা।

এখন আমাদের পোগ্রাম গুলো যদি এই ক্ষমতাকে কাজে না লাগায় তাহলে অনেক গুলো রিসোর্স অব্যবহৃত থেকে যাবে। আর রিসোর্স গুলোকে কাজে লাগানোর সব চেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে প্যারালাল প্রোগ্রামিং। Parallel Programing এর অন্য নাম Concurrent Programming.


বুঝাই যাচ্ছে পোগ্রামিং এর ভবিশ্যৎ হচ্ছে প্যারালাল প্রোগ্রামিং। এখনই প্রায় ভালো ভালো পোগ্রাম গুলো Concurrent Programming ব্যবহার করে তৈরি। সমস্যা অন্য জাগায়। প্যারালাল প্রোগ্রামিং মোটামুটি কঠিন। অনেক গুলো কারনে কঠিন।

প্রত্যাকটা প্রসেস নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ, Synchronization ইত্যাদি।  এসব ভালোভাবে শেখার জন্য ইন্টারনেটে প্রচুর আর্টিকেল রয়েছে। একটু খুজলেই পাওয়া যাবে। প্রয়োজন ধৈর্য্য ধরে পড়া, বুঝা আর প্যাকটিস করা। প্র্যাকটিস করার জন্য নিচের লিঙ্ক গুলো দেখতে পারেন।

সব চেয়ে ভালো হয় যদি Intel Parallel Studio ব্যবহার করতে পারেন। তবে এটার যে দাম, দেখলে আকাশ থেকে পড়ার যোগাড়। পাইরেসি করতে চাইলে এখানে ক্লিক করে টরেন্ট থেকে ডাউনলোড করে নিন।

একটু সার্চ করলেই অনেক গুলো ম্যানুয়াল পেয়ে যাবেন। 🙂

প্যারালাল প্রোগ্রামিং এ স্বাগতম 🙂 


3 thoughts on “প্যারালাল প্রোগ্রামিং [Parallel Programing]

  1. প্যারালাল আর কনকারেন্ট একনয়| বা প্যারালাল প্রসেসিং এর অন্য নাম কনকারেন্ট প্রসেসিং নয়| প্যারালাল প্রসেসিং এর একটা মেথড কনকারেন্সি |
    প্যারালাল
    process 1
    process 2
    ——-
    step1 | step4
    step2 | step5
    step3 | step6
    একটা কাজ স্বাধীন ভাবে নিজস্ব প্রসেসে স্বাধীন ভাবে নিজের স্টেপ গুলো পালন করবে
    কনকারেন্ট
    process 1
    process 2
    ——
    step1>step2
    step3> step4
    step5>step6
    যখন কাজ টাইম শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে প্রসেসের স্টেপগুলো পর পর কিন্তু কাজের প্রয়োজন অনুসারে আলাদা আলাদা ভাবে করতে পারে

    1. ধন্যবাদ ক্লিয়ার করার জন্য। আমি পোস্টটি আপডেট করে দিব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *