while

while লুপের সাধারণ ফরম হচ্ছেঃ

while (expression) statement

expression বলতে একটা কন্ডিশন দেওয়া হয়। যতক্ষণ  পর্যন্ত এই কন্ডিশনটি সত্য হবে, ততক্ষন পর্যন্ত while লুপটি চলবে। ছোট্ট একটা প্রোগ্রাম লিখিঃ

উপরের প্রোগ্রামে আমরা number নামে একটা ইন্টিজার ভ্যারিয়েবল নিয়েছি। যার প্রাথমিক মান হচ্ছে ০। এরপর আমরা while লুপ লিখছি।  (number <=9) এটা হচ্ছে কন্ডিশন। যতক্ষন পর্যন্ত এ কন্ডিশনটা সত্য হবে, ততক্ষণ পর্যন্ত ব্র্যাকেটের ভেতরের  {…} কোড গুলো এক্সিকিউট হবে। ব্র্যাকেটের ভেতরে আমরা প্রথমে নাম্বারটি প্রিন্ট করেছি। পরের লাইনে number++; দিয়ে নাম্বারটির মান এক করে বাড়িয়ে দিয়েছি।

 

প্রথমে number ভ্যারিয়েবলটির ভ্যালু ছিল ০… প্রথমে while লুপের ভেতর ঢুকে নাম্বারটি প্রিন্ট করল। এরপর number++; দিয়ে নাম্বারেরর ভ্যালু এক বাড়িয়ে দিল। এখন number ভ্যারিয়েবল এর মান ১ এরপর আবার লুপের প্রথমে ফিরে গেলো। গিয়ে কন্ডিশনটি (number <=9) চেক করল। number ভ্যারিয়েবলের মান কি ৯ অথবা এর থেকে ছোট? যেহেতু নাম্বার ভ্যারিয়েবলের মান ১, এবং ৯ থেকে ছোট। তাই আবার লুপের ভেতরে ঢুকবে। এবং আবার প্রিন্ট করবে। এবার প্রিন্ট করবে 1. আবার number++; দিয়ে ভ্যালু এক বাড়িয়ে দিবে, মান হবে ২। এবং আবার লুপের প্রথমে গিয়ে চেক করবে। যখন দেখবে ৯ থেকে ছোট, তখন লুপের ভেতরে ঢুকবে। এবং আবার number টি প্রিন্ট করবে। ১০ বার লুপে ঢুকবে।

শেষ বার যখন number++ দিয়ে এক মান বাড়িয়ে দিবে, তখন number ভ্যারিয়েবল এর মান হবে 10 এবং যখন কন্ডিশনটি চেক করবে, তখন দেখবে number ভ্যারিয়েবলের মান ৯ থেকে বেশি। তখন আর while লুপটি কাজ করবে না। প্রোগ্রামটি শেষ হবে।

 

আমরা আরেকটা প্রোগ্রাম লিখতে পারি। ছোট বেলায় দুষ্টুমি করলে মাঝে মাঝে শিক্ষক বা বাড়িতে তো ১০০ বার লিখতে দিত, “আমি আর দুষ্টুমি করব না।” তখন যদি আমরা প্রোগ্রামিং জানতাম, আমাদের এত কষ্ট করতে হতো না। কয়েক লাইনের কোড লিখলেই ১০০ বার লেখা হয়ে যেতো। চাইলে তখন ১০০০ বার বা ১লক্ষ বার ও লিখে দেওয়া যেত। while লুপ দিয়ে এই প্রোগ্রামটি লিখি। প্রোগ্রামের ভেতর বাংলিশে লিখলাম “ami r dustumi korbo na”
 

 

প্রোগ্রামটি রান করলে দেখব, কনসোলে ১০০ বার লেখা উঠে, আমি আর দুষ্টুমি করব না।

এখানে এর আগের প্রোগ্রামের মত একই কাজই করা হয়েছে। আগের প্রোগ্রামে নাম্বার ভ্যারিয়েবলটি প্রিন্ট করা হয়েছে। এখন প্রিন্ট করা হয়েছে একটি স্টিং।

প্রতিবার স্টিংটি প্রিন্ট করার পর number ভ্যারিয়েবল এর মান এক করে বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এবং while লুপের প্রথমে গিয়ে কন্ডিশনটি চেক করা হয়েছে। যতক্ষন পর্যন্ত দেখল number এর মান ১০০ থেকে ছোট বা সমান, ততক্ষণ পর্যন্ত লুপটি চলেছে। এবং যখনি number এর মান ১০১ এক হয়েছে, তখন লুপের কাজ শেষ হয়েছে।

 

while লুপ দিয়ে আরেকটি প্রোগ্রাম লিখতে পারি। 1 থেকে 100 পর্যন্ত বেজোড় সংখ্যা গুলো প্রিন্ট করতে পারি। নিচের প্রোগ্রামটি দেখিঃ

এক এর থেকে দুই যোগ করলে হবে তিন। একটা বিজোড় সংখ্যা। তিনের সাথে আবার দুই যোগ করলে হবে ৫, আরেকটি বিজোড় সংখ্যা। এভাবে প্রতিবার ভ্যারিয়েবল এর মান দুই বাড়িয়ে দিলেই আমরা বিজোড় সংখ্যা গুলো পেতে পারি। উপরের প্রোগ্রামে সে কাজটিই করা হয়েছে। number = number + 2; দিয়ে প্রতিবার নাম্বার ভ্যারিয়েবলটির মান দুই করে বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

প্রথমে ভ্যারিয়েবলটির মান ছিল 1, int number = 1; এর কথা বলছি। এরপর লুপের ভেতরে ঢুকলো। এবং কন্ডিশন চেক করা হল। যেহেতু কন্ডিশন সত্য, তাই লুপের ভেতরের কোড গুলো রান করল। number টি প্রিন্ট করল। পরের লাইনে number ভ্যারিয়েবল টির মান দুই বাড়িয়ে দেওয়া হলো। এভাবে এক সময় যখন দেখল number ভ্যারিয়েবলটির মান 100 থেকে বেশি হয়ে গেলো, তখন লুপটি কাজ করা শেষ করল।

 

উপরের প্রোগ্রামটিকে একটু মডিফাই করেই তো জোড় সংখ্যা গুলো বের করতে পারি তাই না? তাহলে তা করে ফেলুন। এরপর কমেন্টে আমাকে জানাতে পারেন।

 

 


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *