পারফেক্ট

তুলি তার ছোট্ট বাঁচ্চাটাকে নিয়ে হাঁটতে বের হয়েছে। বাঁচ্চাটাকে  খেলতে দিয়ে সে একটু বসল। পাশে একটি ছেলে এসে বসল। ছেলেটি নিজ থেকেই কথা শুরু করল। জানেন, মানুষ যখন মারা যায়, তখন পঞ্চম মাত্রা বলতে আরেকটা মাত্রায় গিয়ে পৌঁছায়। যেখানে সুখ দুঃখ বলতে কিছু নেই। আমাদের পৃথিবীর সবচেয়ে দামী জিনিস হচ্ছে সময়। টিক টিক করে বয়ে চলছে। আমাদের কন্ট্রোলে […]

Read More

সময়

তুলি তার ছোট্ট বাঁচ্চাটাকে নিয়ে হাঁটতে বের হয়েছে। বাঁচ্চাটাকে খেলতে দিয়ে সে একটু বসল। পাশে একটি ছেলে এসে বসল। ছেলেটি নিজ থেকেই কথা শুরু করল। জানেন, মানুষ যখন মারা যায়, তখন পঞ্চম মাত্রা বলতে আরেকটা মাত্রায় গিয়ে পৌঁছায়। যেখানে সুখ দুঃখ বলতে কিছু নেই। আমাদের পৃথিবীর সবচেয়ে দামী জিনিস হচ্ছে সময়। টিক টিক করে বয়ে […]

Read More

ছেলেটি বা মেয়েটি

একটি ছেলে প্রতিদিন বিকেলে ছাদের এক পাশে বসে গান গাইতো। ছাদের অন্য কোনায় অন্য ফ্লাটের একটি মেয়ে বসে বসে শুনত। গান গুলো কেমন মন খারাপ দেওয়ার মত। মেয়েটি এভাবে প্রতিদিন গান শুনতে শুনতে ছেলেটির গল্প জানতে ইচ্ছে করত। কিছু জিজ্ঞেস করলে ছেলেটি উদাস হয়ে বসে থাকত। কোন উত্তর দিত না। কিছুই বলত না। একদিন মেয়েটি […]

Read More

ভালোবাসি তাই…

ঐ দিন তারিন আমাকে ডাকল। শেষ দেখা হয়েছিল তার বিয়ের দিন। ওর বিয়েতে যেতে কষ্ট হয়েছিল। তারপর ও গিয়েছি। ক্লাসমেটেরা সবাই ছিল। ছিল পরিচিত অনেকেই। না গেলে সবাই খারাপ বলত। তাই ইচ্ছে না থাকা সত্ত্বেও গিয়েছি। আমি তারিনের বন্ধু ছিলাম। আর তারিন ছিল আমার স্বপ্ন। নিজের স্বপ্নের কথা কোন দিন ও তারিনকে জানাই নি। বন্ধুর […]

Read More

আর্টিস্ট ঐ মেয়েটি

মেয়েটির সাথে প্রথম দেখা হয়েছিল তার স্টুডিও এর দরজায়। হাতে, মুখে, জামাতে রঙ লেগে রয়েছিল। স্টুডিও বললে ভুল হবে, তাদের নিজ বাড়ির একটি রুমের সামনে। যে রুমে সে ছবি আঁকত। সাদা জামায় লেগে থাকা রঙ গুলো আমার কাছে জামারই অংশ মনে হয়েছিল। মনে হয়ছিল কেউ ইচ্ছে করে আর্ট করছে। কিন্তু না, আসলে সে গুলো ভুল […]

Read More

টিউশনি

ত্বকির টিউশনির বেতনটা পাবে আজ। খুশি মনে টিউশনিতে গেলো। আচ্ছা গল্প বলার আগে ত্বকির পরিচয়টা দেওয়া যাক। অন্য সব সাধারণ ছাত্রের মতই একজন। একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়তে পড়ে। ম্যাচে থাকে আর নিজের খরচ নিজে বহন করে। এ জন্যই টিউশনি। সাধারণ ছাত্রদের রুজির প্রধান মাধ্যম। তের বা চোদ্দ বছরের একটি মেয়েকে পড়ায় সে। ভালো ছাত্রী। সব কিছুই […]

Read More

হোটেলের ছেলেটি বা জীবনের মানে

বাবার সাথে যখন রেস্টুরেন্ট এ খেতে আসতাম তখন ও ছেলেটিকে দেখতাম। এখনো খেতে আসলে দেখি। আগে যখন আসতাম তখন ছেলেটি ছোট ছিল, আমিও। আমার সাথে সাথে ছেলেটিও বড় হতে লাগল। নাকি ছেলেটির সাথে সাথে আমি? আগে যখন আসতাম, তখন সে ছিল ওয়েটারের হেল্পপার। পানি এগিয়ে দিত, টেবিলটি পরিস্কার করে দিত। এখন সে নিজে ওয়েটার। সাথে […]

Read More

বৃত্ত

বৃত্তের বাহিরে কয়জনে বের হতে পারে? পারে না। হাতে গোনা কয়েকজন ছাড়া কেউই পারে না। মাহি পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে যখন টিকতে পারে নি, তখন বাবার বাঁকা চোখ দেখতে হয়েছে। হচ্ছে। বাবাকেও কি বলবে। পর্যাপ্ত টাকা থাকলে হয়তো বলতে পারতো, প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি করিয়ে দিন। বলতে পারে নি। মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম গ্রহন করাও মনে হয় এক ধরনের […]

Read More

কনফেশন

আচ্ছা ফাদার, কনফেশন করলে তো আমার সিক্রেট গোপন রাখা হবে তাই না? – হ্যাঁ। সব সময়ই গোপন রাখা হবে। বড় কোন সিক্রেট হলেও?– হ্যাঁ। কাউকে খুন করার কনফেশন হলেও?ফাদারের মুখ একটু শক্ত হলো। তা প্রকাশ না করেই বলল, হ্যাঁ ফাদার, আমি গত ৭ দিন সাতটা খুন করেছি। পত্রিকা খুললেই জানতে পারার কথা। সব গুলো প্রত্রিকায় প্রধান শিরোনাম হচ্ছি আমি। […]

Read More

একজন খুনির ডায়েরী থেকেঃ ইভ টিজার

যদি great power comes with great responsibility তাহলে তো worst power comes with worst responsibility , তাই না? নিজের অজান্তেই এই worst responsibility টা পালন শুরু করলাম প্রথম ঘটনাটি ঘটেছে স্কুলের একটি ছেলেকে দিয়ে। তা লেখার আগে আরো কিছু লেখা প্রয়োজন, তা লিখি।  ছোট থেকেই সবচেয়ে পাতলা ছিলাম। সবাই বলত, বাতাসেই নাকি আমি পড়ে যাবো। যাদের সাথে খেলতে যেতাম, […]

Read More