ব্লগস্পটে লেখা লিখি করে স্মার্ট প্যাসিভ রেভিনিউ তৈরি করা।

ফেসবুকে সারাক্ষণ পড়ে না থেকে ব্লগে একটু আধটু লেখা লেখি করে একটা স্মার্ট প্যাসিভ রেভিনিউ তৈরি করা যায়। তার জন্য যে নিজের ওয়েব সাইট থাকতে হবে তেমন না। ব্লগস্পটে একটা ব্লগ খুলেও করা যায়। এমনকি নিজের একটা ব্লগ থেকে ব্লগস্পটের একটা ব্লগে বেশি ট্র্যাফিক পাওয়া যায়। কারণ তা গুগলের প্রোডাক্ট এবং গুগল নিজের প্রোডাক্টের কারণে সার্চ ইঞ্জিনে প্রাধান্য দিয়ে থাকে।

শুরু করার সহজ। blogger.com এ গিয়ে একটা একাউণ্ট খুলতে হবে। তারপর নিজের ব্লগের জন্য সুন্দর একটা নাম পছন্দ করতে হবে। এরপর লেখা লেখি। বেশি টেকনিক্যাল জ্ঞানের দরকার নেই। শুধু MS Word বা যে কোন ওয়ার্ড প্রসেসরে লেখার অভিজ্ঞতা থাকলেই হবে। যে কেউই শুরু করতে পারে। একাউণ্ট খোলা, ব্লগ সেটআপ করা যথেষ্ঠ সহজ।

নাম ঠিক করাটা একটু গুরুত্ব পূর্ণ। আপনি কোন বিষয় লিখবেন, তা যেন ব্লগের নামে রিফ্লেক্ট করে। আর লিখতে হবে একটা নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর। জগা খিঁচুড়ি হলে সমস্যা।

এক দিনে সব লিখে ব্লগ পূর্ণ করে ফেলব, এমন মানসিকতা হলে হবে না। আস্তে আস্তে শুরু করতে হবে। আজ একটা লেখা, কাল একটা লেখা। পরশু একটা লেখা। এভাবে। নিজের পছন্দের কোন বিষয়। খেলা ধুলা হতে পারে, রান্না বান্না হতে পারে, মুভি রিভিউ হতে পারে, গেমস রিভিউ হতে পারে, অ্যাপ রিভিউ হতে পারে, হতে পারে নিজের চিন্তা ভাবনা, হতে পারে কোন টিউটোরিয়াল। যে বিষয়ই হোক না কেন, একটাই হোক। ঐ একটা বিষয়ের উপরই থাকুক সব গুলো লেখা।

প্রথম দিকে হয়তো কোন ফিডব্যাক আসবে না। কিন্তু আস্তে আস্তে লিখতে থাকলে এক সময় দারুণ ফিডব্যাক পাওয়া যাবে।

যা করা যাবে না তা হচ্ছে কপি পেস্ট করা। কপিরাইট কন্টেন্ট ব্যবহার করা যাবে না। লিখতে হবে নিজে নিজে। নিজে এখন যা করছেন, তার পাশা পাশি অবসর সময় গুলো ব্লগে লিখতে দারুণ হবে। আমি অনেক কে দেখেছি কি, অল্প কয়েকটা পোস্ট লিখে, এরপর কোন ফিডব্যাক না পাওয়ার কারণে ছেড়ে দেয়। এটা করলে চলবে না। নিজের সব সময় দেওয়ার দরকার নেই। অল্প অল্প সময় করে দিয়ে নিয়মিত ব্লগে পোস্ট করা চালিয়ে যেতে হবে। সপ্তাহে একটা বা মাসে একটা হলেও দারুণ হবে।

ফ্রিল্যান্সিং করার কারণে বিদেশি অনেক গুলো ক্লায়েন্টের ব্লগে একটু আধটু কাজ করতে হয়েছে। তাদের রেভিনিউ দেখার সুযোগ হয়েছে। সাধারণ লেখা থেকে প্রতি মাসে প্রায় $3000 বা তারো বেশি রেভিনিউ আসে। তারা ও প্রফেশনাল লেখক নয়, নিজের কাজের পাশা পাশি নিজের পছন্দের বিষয় নিলে লেখে। এভাবেই মাস শেষে দারুণ একটা আয়। আর মজার ব্যপার হচ্ছে এই আয় প্রতি মাসেই আস্তে আস্তে বাড়তে থাকে। তো শুরু করা যাক, শুভ কামনা। সবার জন্য 🙂


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *