এলান টিউরিং : সময় থেকে এগিয়ে থাকা একজন বিজ্ঞানীর গল্প

ডিজিটাল কম্পিউটারের আর্কিটেকচারের একজন প্রণেতা চিলেন Alan Turing। উনি একটা পেপারে একটি মেশিনের কথা উল্ল্যেখ করেছেন, যে মেশিনের প্রসেসর থাকবে, মেমরি থাকবে ইত্যাদি ইত্যাদি। যা হচ্ছে বর্তমানের আমাদের কম্পিউটার বা সব রকম স্মার্ট ডিভাইস গুলো।

সময় থেকে এগিয়ে থাকা এই বিজ্ঞানী অনেক কিছু নিয়ে কাজ করে গিয়েছেন। বেশিরভাগ সময় দিয়েছেন কম্পিউটার সাইন্সে। তার অবদান কম্পিউটার সাইন্সকে অনেক দ্রুত ডেভেলপ করতে সাহায্য করেছে। কাজ করেছেন লজিক নিয়ে। কোড এনকোড, ডিকোড নিয়ে

আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স এর স্রষ্টা বলা হয় উনাকে। এমনকি একটি মেশিন বুদ্ধিমান কিনা, তা পরীক্ষা করার জন্য একটি টেস্ট এর কথা উল্যেখ করে গিয়েছেন, যা টিউরিং টেস্ট নামে পরিচিত।
দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের সময় জার্মান আর্মি তথ্য আদান প্রদান করার জন্য Enigma machine নামে একটা মেশিন ব্যবহার করত। যেটা তথ্য কে এনক্রিপ্ট করে পাঠাত। অপর প্রান্তে একই মেশিন ব্যবহার করে এবং একই কী ব্যবহার করে তথ্য গুলো উদ্ধার করত। তো ব্রিটিশ সরকার এই তথ্য গুলো পেলে জার্মানীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে এগিয়ে থাকবে পারবে, সে চিন্তা করে Enigma Machine দিয়ে এনক্রিপ্ট করা তথ্য গুলো ব্রেক করার চেষ্টা করেছে। এবং ঐ টিমে কাজ করেছে Alan. এবং সফল হয়েছে। তৈরি করেছে একটা মেশিন, যেটা সহজে Enigma machine কে ডিকোড করতে পারত।

এলান টিউরিং
এলান টিউরিং

প্রকৃতিও Alan Turing এর কাছে কোডেড কিছু মনে হচ্ছিল। প্রকৃতিকেও ডিকোড করার চেষ্টা করেছে। ফুল, মাছ, ইত্যাদির রঙ একেক রকম কেন, ডিজাইন একেক এরকম কেন, এসব নিয়ে ভাবতো। জীবের ভিন্নতা কে গণিতে প্রকাশ করে যারা, তাদের বলে Mathematical Biologist। একজন কম্পিউটার বিজ্ঞানী, দার্শনীক, গণিতবিদের পাশা পাশি তিনি ছিলেন একজন Mathematical Biologist। একটা পেপারে প্রকৃতির এই ভিন্নতা নিয়ে একটা সমীকরণ প্রকাশ করেছে। কারণ Alan Turing বিশ্বাস করত, সব কিছুই গাণিতিক সমীকরণে প্রকাশ করা সম্ভব। সম্ভব সব ভার্চুয়াল বিষয়কে ০ এবং ১ এ প্রকাশ করা।

Alan Turing এর পারসোনাল ইন্টারেস্টের জন্য তাকে ব্রিটিশ সরকার অভিযুক্ত করে এবং তাকে হয় জেল অথবা একটা ঔষধ গ্রহণ করতে বলে। যা তার ঐ পারসোনাল ইন্টারেস্টটিকে দমিয়ে রাখবে। Alan ছিল Homosexual Alan দ্বিতীয় অপশনটি সে গ্রহণ করে। ঐ ঔষধের জন্য তার শারীরিক এবং মানষিক অনেক সমস্যা দেখা দেয়। সে এথলেট ছিল। সুন্দর শরীরের অধিকারি ছিল। যে সরকারের জন্য সে এত পরিশ্রম করেছে, সে সরকার তাকে এমন একটা শাস্তি দিয়েছে… এক সময় ফ্রাস্ট্রেটেড হয়ে সে সুইসাইড করে। সায়ানাইড যুক্ত একটা আপেল খেয়ে…
মাত্র ৪১ বছর বেঁচে ছিল। এই অল্প সময় অনেক অসামান্য কাজ করে গিয়েছে, সত্যিই অসামান্য। ২০ শতকের একজন সেরা বিজ্ঞানী। সময় থেকে এগিয়ে থাকার কারণে তার অনেক চিন্তাই ঐ সময়ের মানুষ বুঝতে পারে নি। বেশির ভাগ পরবর্তীতে অনেক কাজে লেগেছে। এই পৃথিবীর শেষ দিন পর্যন্ত কাজে লেগে যাবে।

Alan Turing 7 June 1954 সালে মারা যায়। পরবর্তিতে ২০০৯ সালে বৃটিশ সরকার ক্ষমা ছেয়েছে, Alan এর বিচার নিয়ে। সে আরো ভালো বিচার পেতে পারত, তা নিয়ে। আর সে বেঁচে থাকলে আমরা আরো এগিয়ে যেতাম, বিজ্ঞানে, প্রযুক্তিতে, গণিতে…

** CodeBreaker নামে একটা ডকুমেন্টারি রয়েছে Alan Turing এর উপর, তা দেখা যেতে পারে। মুভিও না, আবার ডকুমেন্টারিও না। ঐ ভিডিওটা দেখার সময় বার বার মনে হচ্ছিল, Alan Turing এর চরিত্রে Benedict Cumberbatch অভিনয় করলে দারুণ হতো।

আমাকে হতাশ করে নি, The Imitation Game নামে একটা মুভি বের হয়েছে। যদিও এখনো সিনপ্লেক্স গুলোতে চলতেছে। ডিভিডি রিলিজ হয় নি। অপেক্ষা আমিও করতেছি, দেখার জন্য। দুইটা কারণে, একটা হচ্ছে Enigma Machine এর কোড ব্রেক করার উপর এলান টিউরিং কিভাবে কাজ করেছে, তার উপর। এবং আরেকটা কারণ হচ্ছে Benedict Cumberbatch এর অভিনয়। আর মুভিটি Alan Turing এর জীবনের একটা অংশ থেকে তৈরি… Alan Turing এর চরিত্রে অভিনয় করেছে Benedict Cumberbatch

 

আপডেটঃ  The Imitation Game মুভিটি ডাউনলোড করা যাচ্ছে। একটু সার্চ করলেই পেয়ে যাওয়ার কথা।


2 thoughts on “এলান টিউরিং : সময় থেকে এগিয়ে থাকা একজন বিজ্ঞানীর গল্প

  1. আসলেই কি Enigma Machine এনক্রিপ্ট করা তথ্য গুলো ব্রেক করাতে পারত ?
    নতুন তথ্য জানলাম !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *